সিনেমার নগ্ন দৃশ্যের কাহিনী যা শুনলে চমকে যাবেন!

dffds-300x178নগ্ন দৃশ্যে দর্শক যতই শিহরিত হোক না কেন, অভিনেতা অভিনেত্রীদের কাছে এ কাজ মোটেও সুখকর নয়৷ রীতিমতো অস্বস্তি নিয়েই এ কাজ করতে হয়েছে তাঁদের৷ কেউবা আবার বেশি টাকার অফার পেয়ে তবেই রাজি হয়েছেন৷ কেউ কেউ নেশা করে তবে পরদায় ফুটিয়ে তুলতে পেরেছেন যৌনতা৷ বিখ্যাত কিছু ন্যুড সিনের নেপথ্য কাহিনিও তাই দৃশ্যগুলোর থেকে কম উত্তেজক নয়৷

১. ‘সোর্ডফিস’ ছবিতে টপলেস হয়েছিলেন হ্যালি বেরি৷ প্রথমে অবশ্য এমন দৃশ্যে অভিনয় করতে রাজি হচ্ছিলেন না৷ কিন্তু তাঁকে শুধু এই দৃশ্য করার জন্য অতিরিক্ত ৫০০ হাজার ডলার দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়৷ তারপরই এ দৃশ্য করতে রাজি হন তিনি৷

২. বিখ্যাত ‘টাইটানিক’ ছবির ন্যুড পেন্টিং দৃশ্যের কথা নিশ্চয়ই সকলেরই মনে আছে৷ এ দৃশ্যে অভিনয় করার আগে রীতিমতো অস্বস্তিতে ছিলেন লিওনার্দো দ্য ক্যাপ্রিও৷ অস্বস্তিতে ছিলেন কেট উইনস্লেটও৷ শেষমেশ জড়তা কাটাতে উদ্যোগী হন কেটই৷ তিনিই লিওকে চমকে দিয়ে তাঁকে নগ্ন করতে উদ্যোগি হন৷ দুজনেই হেসে ওঠেন৷ তারপরই স্বচ্ছন্দ হয়ে সেই বিখ্যাত দৃশ্যের শুটিং করেন দু’জনে৷

৩.  ১৯৮০ সালের ছবি ‘আমেরিকান জিগোলো’তে নগ্ন হয়েছিলেন রিচার্ড গের৷ কিন্তু ঘটনা হল, তাঁর নগ্ন হওয়ার কথা চিত্রনাট্যে ছিলই না৷ সিনেমাটিকে বাস্তবসম্মত করতে তিনি নিজে থেকেই নগ্ন হয়েছিলেন৷

৪. ১৯৯২ সালের ছবি ‘ফার অ্যান্ড অ্যাওয়ে’৷ নিকোল কিডম্যানের স্বামীর ভূমিকায় ছিলেন টম ক্রুজ৷ দৃশ্যটি ছিল, টমের শরীর থেকে ব্যোল সরাবেন নিকোল৷  কিন্তু  নিকোলের রিঅ্যাকশন শট কিছুতেই পছন্দ হচ্ছিল না পরিচালকের৷ তখন পরিচালকের পরামর্শমতো টম নিকোলের সামনেই নিজের অন্তর্বাস খুলে ফেলেন৷ প্রত্যাশিতভাবেই অপ্রত্যাশিত প্রতিক্রিয়া ফুটে ওঠে নিকোলের মুখে৷ সেটিই আমরা দেখি ছবিতে৷

৫. ‘ওয়াইল্ড থিংস’ ছবি তে একটি থ্রিসাম দৃশ্য করেছিলেন ডেনিস রিচার্ডস, ম্যাট ডিলন ও নেভ ক্যাম্পবেল৷ তিনজনেই চরম অস্বস্তিতে ছিলেন৷ তাই টাকিলার নেশাই ভরসা৷ নেশা বেশ জমে ওঠার পরেই এ দৃশ্যে অভিনয় করতে পেরেছিলেন তাঁরা৷

৬. টিন কমেডি ‘আমেরিকান পাই’-এর নেপথ্য দৃশ্যেও ছিল হাজার মজার খোরাক৷ সসেজ সিদ্ধ পেনসিলের মাথায় আটকে ফয়েলে মুড়ে দু’পায়ের ফাঁকে রেখে কাজ চালিয়েছিলেন অভিনেতা৷

৭. ‘ফিফটি শেডস অফ গ্রে’ ছবিতে নগ্ন হয়েছিলেন ডাকোটা জনসন৷ তিনি জানিয়েছেন এরকম দৃশ্যের অভিনয় মোটেও চাট্টিখানি কথা নয়৷ কেননা উত্তেজিত দেখানোর জন্য তাঁকে ঘামানো হয়েছিল৷ আর ঘরজুড়ে চলছিল রুম হিটনার৷ তার উপর তাঁর হাত পা বাঁধা৷ চোখ বন্ধ৷ একধরনের মানসিক অত্যাচার মনে হয়েছিল তাঁর৷

৮. আরও খারাপ অভিজ্ঞতার কথা জানিয়েছেন নীল প্যাট্রিক হ্যারিস৷ ‘গন গার্ল’ ছবিতে সেক্স সিন করার জন্য তাঁকে রিহার্সাল পর্যন্ত করতে হয়েছিল৷ তিনি জানিয়েছেন, যে স্বামী ছাড়া অন্য এক পুরুষের সঙ্গে সঙ্গম,  অভিনয় হলেও তা কষ্টকর৷ তার উপরে আবার প্রত্যেকটি খুঁটিনাটি রিহার্স করা ছিল চরম অস্বস্তির৷

Updated: April 4, 2016 — 12:10 am

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bdtips © 2015