যৌনতার যে ৩টি দিক আপনি জানতে চান না

1431882386সেক্স সম্পর্কিত অনেক বিষয় আছে যা আমরা জানি না, আবার অনেক বিষয় আছে যা স্বেচ্ছায় জানতে চাই না বা এড়িয়ে চলি। কিন্তু আমরা জানতে না চাইলেও এগুলি সত্যি এবং স্বাভাবিক। ভয় বা অস্বস্তির কোন কারণ নেই। জৈবিক নিয়মেই আমরা এইসব অনুভূতি দ্বারা পরিচালিত হই।

মেডেলাইন এ. ফাগের, পি.এইচ.ডি, ইস্টার্ণ কানেক্টিসুট স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক বিভিন্ন গবেষণার ফলাফল নিয়ে একটি স্টাডি করেন। তিনি তার বিশ্বাবিদ্যালয়ে সামাজিক মনোবিজ্ঞান, পরিসংখ্যান, গবেষণার তত্ত্ব এবং আকর্ষণ ও রোমান্টিক সম্পর্কের উপর শিক্ষা দেন। তার গবেষণায় উঠে এসেছে যৌনতা সম্পর্কিত ৩ টি অদ্ভুত কিন্তু স্বাভাবিক বিষয় যা আমরা জানতে চাই না।

বিপরীত লিঙ্গ মাত্রই উত্তেজিত করতে পারে
ফ্রয়েডের অডিপাস কমপ্লেক্স ১ যারা পড়েছেন তারা সবাই এই তত্ত্বের সাথে পরিচিত যে বিপরীত লিঙ্গমাত্রই আকর্ষণ তৈরি করে এমনকি তা হতে পারে বাবা-মায়ের প্রতিও! যদিও অধিকাংশ মানুষ মনে করেন তারা তাদের বাবা-মায়ের প্রতি কোন আকর্ষণ বোধ করেন না। হ্যাঁ, হয়ত আমরা বাবা মায়ের প্রতি যৌন আকর্ষণবোধ করি না কিন্তু গবেষণায় দেখা গেছে, কিন্তু আমরা মানসিকভাবে বেশী ঘনিষ্ঠবোধ করি।

খেয়াল করলেই আমরা দেখব, পরিবারে মেয়ে শিশুটি বাবার বেশী আদরের হয়। মায়ের দূর্বলতা বেশী থাকে তার ছেলে সন্তানের উপর। অনেক সময় দেখা যায়, ছেলে বাবাকে ঈর্ষা করে মায়ের সাথে ঘনিষ্ঠতার জন্য বা অনিরাপত্তায় ভোগে, ভাবে মা তাকে কম ভালবাসে। এই ঈর্ষা, অনিরাপত্তা তীব্র আকর্ষণের ফল। মা-মেয়ের ঘনিষ্ঠতা বা বাবা-ছেলের বন্ধুত্বও দেখা যায় অনেক পরিবারে। অবাক হবার কিছু নেই। কিন্তু অধিকাংশ গবেষণার ফলাফলে বিপরীত দিকটিই উঠে এসেছে।

এমনকি দেখা যায়, ছেলেরা বিয়ে করার সময় প্রেমিকা বা হবু স্ত্রীর মাঝে মায়ের প্রতিচ্ছবি খোঁজে। তারা আশা করে, তাদের স্ত্রী মায়ের মতোই যত্নশীল, স্নেহপ্রবণ হবে এবং নিঃস্বার্থভাবে ভালোবাসবে। অপরদিকে মেয়েরা হবু বরের মাঝে খোঁজে বাবার ছায়া। বাবার মত নির্ভরতা, ভরসা দিতে পারবে যে মানুষটি তাকেই তারা বেছে নেয় জীবনসঙ্গী হিসেবে।

আমাদের পূর্বপুরুষের যৌনাঙ্গের রক্তিম আভার সাথে মিলিয়ে লাল রং আমাদের উত্তেজিত করে

গবেষণায় দেখা গেছে, নারী-পুরুষ উভয়েই বিশেষভাবে বেশি আকর্ষণ বোধ করি যখন বিপরীত লিঙ্গের মানুষটি লাল রঙ এর পোশাক পড়ে। কেন এটা হয়? লাল রঙ পুরুষদের জন্য শারীরিক উত্তেজনা, যৌন উত্তেজনা এবং সামাজিক উচ্চাবস্থা প্রকাশক রঙ। লাল রঙ এর এই আকর্ষণ ক্ষমতাকে আমরা সাংস্কৃতিকভাবেও স্বীকার করি। এক্ষেত্রে আমরা ক্রাইস ডি বার্গের ‘লেডি ইন রেড’ গানটির কথা মনে করতে পারি। গবেষণায় দেখা গেছে, লাল রঙ এর প্রতি আমাদের আকর্ষণের কারণ লুকিয়ে আছে বিবর্তনের ইতিহাসে।

স্ত্রী বেবুন আর শিম্পাঞ্জিরা নিজেদের উর্বরতার সময় বুকে, মুখে এবং যৌনাঙ্গে লাল আভা ফুটিয়ে তোলে। মানুষের মস্তিষ্কেও পূর্বপুরুষদের এই লাল আভা ফুটিয়ে তোলার ব্যাপারটি কাজ করে। ফলে লাল পোশাক পরিহিতা নারী একজন পুরুষকে উত্তেজিত করে।

যৌন উত্তেজনার সময় বিশ্রী সব উদ্দীপনাকে প্রশ্রয় দেয় মানুষ
গবেষণায় দেখা গেছে, নারী পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রে যৌন উত্তেজনার সময় বিশ্রী কিছু উদ্দীপনা দেখা দেয়, যা তারা বুঝতে পারে না বা বুঝতে পারলেও খারাপ মনে করে না। একজন পুরুষ যখন কোন যৌন উত্তেজনামূলক ছবি দেখে উত্তেজিত বোধ করে তখন সে মানসিকভাবে অনেক রকম ভাবনায় জড়িয়ে যায়। গবেষণায় দেখা গেছে, এসময়ে অনেক পুরুষই এমন কাজ করে বসেন যা তাঁরা স্বাভাবিক ভাবে করেন না। নারীরাও একই ভাবে এধরণের নোংরা এবং উদ্ভট কাজ করে বসে যা তারা খেয়ালও করে না বরং উত্তেজণা প্রশমনের উপায় বলে বোধ করে।

Updated: March 9, 2016 — 10:16 am

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

bdtips © 2015